Jana Ojana Totthoপৃথিবী নিয়ে অজানা তথ্যপৃথিবী সম্পর্কেপৃথিবী সম্পর্কে জানা অজানা

পৃথিবী সম্পর্কে অজানা তথ্য

আমাদের এই সুবিশাল সৌরজগত!! আমাদের কাছে এক অনন্ত রহস্যের নাম। বিশাল বিস্তৃত এই সৌরজগৎতের খুব সামান্য কম অংশই মানুষই জানতে সক্ষম হয়েছে। আমরা যে গ্রহ, উপগ্রহ ইত্যাদি নিয়ে বিস্তৃত সৌরজগতের মধ্যে বসবাসরত আছি আমাদের এই সৌরজগত আকাশগঙ্গা বা মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সি বা ছায়াপথ তে অবস্থিত। আমাদের এই সুবিশাল সৌরজগতের মধ্যে যে গ্রহটাকে নিয়ে আমরা মানুষরা সবচেয়ে বেশি জানতে পেরেছি বলে ধারণা করি সেই গ্রহের নাম হল পৃথিবী। কারণ আমরা এই পৃথিবীতেই বসবাস করি।
আমাদের এই লেখায় আপনাদের জ্ঞাতার্থে উপকিপিডিয়া ও অন্যান্য জায়গা হতে সংগৃহিত আমাদের পৃথিবী নিয়ে কিছু জানা-অজানার তথ্য তুলে ধরছিঃ
পৃথিবী বা Earth :
১. আমাদের সৌরজগতের একমাত্র গ্রহ পৃথিবী বা Earth যেই গ্রহের নামকরণ কোনো রোমান বা গ্রীক দেবতার নাম অনুসারে করা হয়নি। Earth শব্দটি এসেছে English শব্দ “Eorthe” এবং Jarman শব্দ “Erda” থেকে। যার অর্থ মাটি বা ভূমি। আনুমানিক 4.54 billions বছর আগে গঠিত হয়েছিল পৃথিবী আর সৌরজগতের একমাত্র গ্রহ যেটাতে মানুষের জানামতে জীবন বা প্রাণের বিকাশ হয়েছে। সৌরজগতের নক্ষত্র সূর্য থেকে পৃথিবী গ্রহটির দূরত্ব 92.96 millions মাইল।
২. পৃথিবীর চারদিকে ঘূর্ণনের স্পিড আস্তে আস্তে ক্রমশ ধীরগতির হচ্ছে। এতই কম মাত্রায় ধীরগতি হচ্ছে যা আপাতভাবে বোঝা যায়না। পৃথিবীর ঘূর্ণনের গতি ধীর হচ্ছে প্রায় ১৭ মিলিসেকেন্ড প্রতি 100 Year এ । যেমন ধারণা করা যায় পৃথিবীতে একদিন এর গড় দৈর্ঘ্য 24 hour থেকে 25 hour এর কাছাকাছি হবে 140 millions বছর পরে ।
৩. অভ্যন্তরে পৃথিবীর কেন্দ্রের তাপমাত্রা অতিরিক্ত বেশি । প্রায় সূর্যপৃষ্ঠের তাপমাত্রার সমান পৃথিবীর কেন্দ্রের তাপমাত্রা । এর মানে পৃথিবীর কেন্দ্রের তাপমাত্রা প্রায় ৫৪০০ ডিগ্রী সেলসিয়াস।
৪. আমাদের সৌরজগত বা সূর্যের পরিবারের মধ্যে পৃথিবী সবচেয়ে বেশি ঘনত্বের গ্রহ। পৃথিবীর সকল অংশে এর পরিমাণ সমান না হয়ে কমবেশি পারে। তবে পৃথিবীর গড় ঘনত্বের মান প্রায় ৫.৫২ কিউবিক সেন্টিমিটার/গ্রাম।
৫. নিঃসন্দেহে পৃথিবীর সবচেয়ে শীতল স্থান এন্টার্কটিকা । এন্টার্কটিকা তাপমাত্রা -৯৯ ডিগ্রী ফারেনহাইট থেকে -৭২ ডিগ্রী সেলসিয়াস এর ও নিচে নেমে যায় শীতে । কিন্তু অত্যন্ত আচার্যজনক তথ্য হল এ পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা record করা হয়েছে Russia তে। 1983 সালের 21 july রাশিয়ার Vostok Station  রেকর্ডকৃত পৃথিবীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল -৮৯.২ ডিগ্রী সেলসিয়াস ।আর ১৯২২ সালে লিবিয়ার আল আজিজিয়া তে পাওয়া পৃথিবীর সর্বোচ্চ রেকর্ডকৃত তাপমাত্রা ছিল প্রায় ১৩৬ ডিগ্রী ফারেনহাইট ।
৬. পৃথিবীর সবচেয়ে গভীর স্থান কোনটি?

উত্তর সমুদ্রের তলদেশ এর কথা আমাদের মনে সহজেই আসবে। কিন্তু আপনি জেনে অবাক হবেন যে পৃথিবীর গভীরতম স্থান একটি স্থলভাগ এটা সমুদ্রের তলদেশ নয়। আমাদের এই পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ৮৩৮২ ফুট(২৫৫৫ মিটার) সমুদ্রের গভীরতা সেখানে ৩৫৮১৩ ফুট(১০৯১৬ মিটার) সবচেয়ে গভীর স্থানের গভীরতা  । আর এন্টার্কটিকার বরফ ঢাকা Bentley Subglacial Trench জায়গাটি হল পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি গভীরতম স্থান।
৭। পৃথিবীর প্রায় ৪ ভাগের ১ ভাগ বা ৭০% ই মহাসমুদ্র দিয়ে চারদিক ঢাকা। আর অনুমান করে বলা যায় মানুষ সমুদ্রের ১০০ ভাগের মধ্যে মাত্র ৫ ভাগই এ পর্যন্ত জেনেছে বাকি ৯৫ ভাগ মানুষের এখনো অজানা। আশ্চর্যের বিষয় হল প্রায় 300 millions বছর আগে পুরো পৃথিবীতে মাত্র ১ টি ভূখণ্ড বা ১টি মাত্র মহাদেশ ছিল। সেই পৃথিবীর সেই বিশালাকার অখন্ড মহাদেশকে বলা হত Pangaea নামে । এবং তখন ওই মহাদেশের চারদিকে পুরো পৃথিবীতে সুবিশাল panthalassa নামে একটা ই সমুদ্র ছিল।
৮। পৃথিবীতে মহাসাগর সহ সবমিলিয়ে মাত্র ০.০০০৩% পানি আজ পর্যন্ত ব্যবহার করেছে মানুষ
৯। Dianasor এর বিলুপ্তি হয়েছে 11.41.00 pm এ এবং আমাদের মানবসভ্যতা শুরু হয়েছে 11.54.43 pm এ ব্যাপারটা হবে যদি পৃথিবীর history বা ইতিহাসকে ২৪ ঘন্টায় combat করা হয়।
১০। পৃথিবীর সবচেয়ে সম্পদশালী ধনী সমুদ্রভাগ ধারণা করা যায়।
পৃথিবীর সমুদ্রভাগে পানিতে মিশ্রিত অবস্থায় প্রায় 20 millions টন gold বা সোনা আছে। কিছু Gold বা সোনা মহাসাগরের তলদেশে মাটি বা পাথরের সঙ্গে মিশ্রিত অবস্থায় আছে। কিন্তু এত Gold বা সোনা খুজে নিয়ে বেঁচে উত্তোলন করার মতো পদ্ধতি এখনও নাই। National Oceanic and Atmospheric Administration(NOAA) এর মতে পৃথিবীর প্রত্যেক মানুষ গড়ে ৯ পাউন্ড করে পেত যদি সমুদ্রের সকল সোনা উত্তোলন করা যেত ।
১১। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমুদ্র অববাহিকা বলা হয় প্যাসিফিক সাগর কে। প্যাসিফিক সাগরের আয়তন প্রায় ১৫৫ millions স্কয়ার কিলোমিটার বা ( ৫৯ millions স্কয়ার মাইল )। পৃথিবীর মোট পানির অর্ধেক এর ও বেশি পানি প্যাসিফিক সাগরে আছে। NOAA এর মতে, প্যাসিফিক সাগরের বিশালতা এতটা যে পৃথিবীর সকল মহাদেশ প্যাসিফিক সাগরের তলে বসিয়ে দেয় যাবে।
১২। পৃথিবীর সবচেয়ে শুষ্ক স্থান পেরুতে অবস্থিত আটাকামা  Atacama Dessert (মরুভূমি) এবং চিলি । যেখানে কখনো বৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়নি Atacama Dessert মরুভূমির কেন্দ্রে এমন কিছু জায়গা আছে ।
১৩। পৃথিবীর সবচেয়ে সক্রিয় আগ্নেয়গিরি দক্ষিণ ইটালির Stromboli । Stromboli আগ্নেয়গিরি ধারাবাহিকভাবে গত প্রায় ২০০০ বছর ধরে অগ্ন্যুতপাত ঘটিয়ে যাচ্ছে। একে Lighthouse of Mediterranean বা ভূমধ্যসাগরের বাতিঘর বলেও ডাকা হয়।
HelpBangla.com
এরকম নিত্য নতুন তথ্য জানতে HelpBangla.com নিয়মিত ভিজিট করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button